শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:২৭ অপরাহ্ন

৯৯৯ ফোন : আহত মা ও মেয়েকে উদ্ধার করলেন পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার ।।
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১২৭ বার দেখা হয়েছে
লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল

রাস্তা নিয়ে বিরোধের জেরে লাালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় এক কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীসহ মাকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিবেশী প্রতিপক্ষ। এনিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়ন এর বড় কামলা বাড়ি ১নম্বর ওয়ার্ডের মেসের আলীর সাথে প্রতিবেশী রওশন আরা বেগমের বাড়ি যাতায়াতের রাস্তা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে।

এক পর্যায় ১১/০৯/২০২২ইং তারিখে রওশন আরা তার কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে নিয়ে কলেজে যাবার পথে তার পথরোধ করেন জামাল হোসেন (৩২), জামালের স্ত্রী সাহেরা খাতুন (২৫) সহ ৪ জন।

পরে রওশন আরা বেগম তার মেয়ে খাদিজা খাতুন (১৮) কলেজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে তার পথরোধ করে প্রতিপক্ষ জামালের স্ত্রী সাহেরা খাতুন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।

একপর্যায়ে লাঠি, কুড়াল হাতে নিয়ে কলেজ ছাত্রী খাদিজার উপরে আক্রমণ চালায়। এতে খাদিজার চিৎকারে মেয়েকে বাঁচাতে মা রওশন আরা এগিয়ে গেলে প্রতিপক্ষ তার উপরেও চালান অমানুষিক নির্যাতন।

ওই দিনেই তিনদফা মারপিটের শিকার হন মা ও মেয়ে। পরে স্থানীয়রা ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিলে ঘটনাস্থলে আতিমারী থানা পুলিশ এসে আহত মা ও মেয়েকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

দীর্ঘ এক সপ্তাহ লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি থাকার পর কলেজ ছাত্রী খাদিজা খাতুন ও মা রওশন আরা বেগম বাড়ি ফিরেছেন এবং থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এ বিষয়ে এক নম্বর অভিযুক্ত জামালের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমি মারামারি ঠেকাতে গেছিলাম। তার হাতে কুড়াল ছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি বাঁশ কটা শ্রমিক কাজ শেষে বাড়ি ফিরে ঘটনা দেখে এগিয়ে গিয়েছিলাম।

ভুক্তভোগী রওশন আরা ও কলেজ ছাত্রী খাদিজা বেগম ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত শেষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার জোর দাবি জানিয়েছেন।

এবিষয়ে আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোক্তারুল ইসলাম বলেন, বিষটি তদন্তাধিন রয়েছে। তদন্ত শেষে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102