বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৩:২৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ইলিয়াস মোল্লা’কেই পুনরায় চেয়ারম্যান হিসেবে চায় লাউকাঠী ইউনিয়নবাসী শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে ভোঁ-দৌড় দিলেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা! লালমনিরহাটে পানির নিচে কৃষকের স্বপ্নের ধান! হাতীবান্ধায় ন্যাশনাল ব্যাংকের করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ভুট্টাক্ষেতে মিলল স্কুলছাত্রীর মরদেহ তিস্তা বাঁচাও ভাঙ্গন ঠেকাও শীর্ষক তিস্তা কনভেনশন কাজীর কান্ড! কাবিননামা নিতে ৩০ হাজার টাকা দাবি মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে দুই পুলিশ কর্মকর্তা আহত! লালমনিরহাটে বিএনপির বাইসাইকেল র‍্যালিতে মির্জা ফখরুল লালমনিরহাটে অস্ত্রসহ ৪ জন জনতার হাতে আটক।। পুলিশে সোপর্দ

স্বাস্থ্য বিধি মানছেন না খেয়া মাঝি ও যাত্রীরা

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫১ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

বাংলার সংবাদ ডেস্ক ।। করোনা অতিমারিতেও মোংলা নদী পারাপারকারী খেঁয়া ট্রলার মাঝি ও যাত্রী সাধারণ সরকারী কোন নির্দেশনা মানছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ, উপজেলা প্রষাসনসহ বিভিন্ন সংস্থার সদস্যরা নদী পারাপারে যতই সামাজিক দূরত্ব মেনে চলাসহ মুখে মাস্ক পরিধান করার আহ্বান জানালে এর কোন ব্যত্যয় ঘটেনি। তবে বৃহস্পতিবার দিনভর যাত্রী ও মাঝিদের মধ্যে কোন স্বাস্থ্য বিধি ও মুখে মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা যায়নি।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, মোংলা বন্দর যন্ত্র চালিত মাঝিমাল্লা সংঘের অধীন সুন্দরবন ওয়াপদা পারাপার সমিতি ও ব্যবসায়ী পারাপার সমিতির মোট ১৫০ জন সদস্য ১৮টি ট্রলারে করে প্রতিদিন সকাল থেতে রাত পর্যন্ত কয়েক হাজার যাত্রী নদী পারাপার হয়ে থাকে। এসব যাত্রীদের কাছ থেকে দিনের বেলায় মাঝিরা জনপ্রতি ৩ টাকা আর রাতে অন্তত ৫ টাকা করে ভাড়া নিয়ে থাকে। সে হিসেবে এ সমিতির দৈনিক আয় কয়েক হাজার টাকা।

অভিযোগ উঠেছে, যত্রতত্র ও খামখেয়ালী ভাবে খেয়া ট্রলার চালানায় করোনা দ্বিতীয় ঢেউয়ের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে খেয়ার মাঝিরা সকালে ১৫ জনের স্থলে ছোট নৌকায় অন্তত ২৫/৩০ আর বড় নৌকায় অন্তত ৩০/৪০ জন করে যাত্রী পারাপার করছে। চালকদের পাশাপাশি এ সব নৌকার যাত্রীরা অধিকাংশ সময়ই সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখাসহ মুখে মাস্ক ব্যবহার করছে না। ফলে যাত্রী ও চালকদের মাঝে করোনা অতিমারি সংক্রমিত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। প্রায় সময়ই ছোট খাট দুর্ঘটনায় খেয়া ট্রলারে থাকা যাত্রীরা কম বেশী আহত হচ্ছেন। অনেক সময় কেউ কেউ খেয়া ট্রলার থেকে পড়ে গিয়ে রিখোঁজ এমনকি মারা পর্যন্ত যান।

মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার বৃহস্পতিবার দুপুরে জানান, দু’দিন আগে খেঁয়া নৌকায় কত জন যাত্রী বহন করা হবে তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। এরপরও কেউ সে সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তবে সুন্দরবন ওয়াপদা পারাপার সমিতির সমিতির সভাপতি কামাল গাজী বলেন, খেয়াঁ চালকরা সবাই বাড়তি যাত্রী বোঝাই করতে উৎসাহ দেন না। কেউই অতিরিক্ত যাত্রী বহন করলে তার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থাসহ জরিমানা করা হয়। এর মধ্যেও ভিড়ের সময় কোন কোন মহিলা বা ব্যক্তি জোর করে খেয়া ট্রলারে উঠে গেলে তাদের কিছুই করার থাকে না।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102