সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১০:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
“বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাই নাই” বেতন বৈষম্য নিরসনে লালমনিরহাটে মানববন্ধন সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মরদেহে ডেপুটি স্পিকারের শ্রদ্ধাঞ্জলি লালমনিরহাটে ক্যাবে’র মতবিনিময় সভা লালমনিরহাটে পূজামণ্ডপ পরিদর্শনে নেপালের রাষ্ট্রদূত ঘনশ্যাম ভান্ডারী লালমনিরহাটের প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ আমবাড়ীতে শ্রমিক লীগের আয়োজনে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন নভেম্বরে জাপান সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে লালমনিরহাটে রক্তদান কর্মসূচী ইডেন ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা তদন্তের নির্দেশ শেখ হাসিনা বহির্বিশ্বেও অন্যতম সেরা রাষ্ট্রনায়ক : রাষ্ট্রপতি

স্বাস্থ্য বিধি মানছেন না খেয়া মাঝি ও যাত্রীরা

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ৮১ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

বাংলার সংবাদ ডেস্ক ।। করোনা অতিমারিতেও মোংলা নদী পারাপারকারী খেঁয়া ট্রলার মাঝি ও যাত্রী সাধারণ সরকারী কোন নির্দেশনা মানছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ, উপজেলা প্রষাসনসহ বিভিন্ন সংস্থার সদস্যরা নদী পারাপারে যতই সামাজিক দূরত্ব মেনে চলাসহ মুখে মাস্ক পরিধান করার আহ্বান জানালে এর কোন ব্যত্যয় ঘটেনি। তবে বৃহস্পতিবার দিনভর যাত্রী ও মাঝিদের মধ্যে কোন স্বাস্থ্য বিধি ও মুখে মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা যায়নি।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, মোংলা বন্দর যন্ত্র চালিত মাঝিমাল্লা সংঘের অধীন সুন্দরবন ওয়াপদা পারাপার সমিতি ও ব্যবসায়ী পারাপার সমিতির মোট ১৫০ জন সদস্য ১৮টি ট্রলারে করে প্রতিদিন সকাল থেতে রাত পর্যন্ত কয়েক হাজার যাত্রী নদী পারাপার হয়ে থাকে। এসব যাত্রীদের কাছ থেকে দিনের বেলায় মাঝিরা জনপ্রতি ৩ টাকা আর রাতে অন্তত ৫ টাকা করে ভাড়া নিয়ে থাকে। সে হিসেবে এ সমিতির দৈনিক আয় কয়েক হাজার টাকা।

অভিযোগ উঠেছে, যত্রতত্র ও খামখেয়ালী ভাবে খেয়া ট্রলার চালানায় করোনা দ্বিতীয় ঢেউয়ের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে খেয়ার মাঝিরা সকালে ১৫ জনের স্থলে ছোট নৌকায় অন্তত ২৫/৩০ আর বড় নৌকায় অন্তত ৩০/৪০ জন করে যাত্রী পারাপার করছে। চালকদের পাশাপাশি এ সব নৌকার যাত্রীরা অধিকাংশ সময়ই সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখাসহ মুখে মাস্ক ব্যবহার করছে না। ফলে যাত্রী ও চালকদের মাঝে করোনা অতিমারি সংক্রমিত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। প্রায় সময়ই ছোট খাট দুর্ঘটনায় খেয়া ট্রলারে থাকা যাত্রীরা কম বেশী আহত হচ্ছেন। অনেক সময় কেউ কেউ খেয়া ট্রলার থেকে পড়ে গিয়ে রিখোঁজ এমনকি মারা পর্যন্ত যান।

মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার বৃহস্পতিবার দুপুরে জানান, দু’দিন আগে খেঁয়া নৌকায় কত জন যাত্রী বহন করা হবে তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। এরপরও কেউ সে সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তবে সুন্দরবন ওয়াপদা পারাপার সমিতির সমিতির সভাপতি কামাল গাজী বলেন, খেয়াঁ চালকরা সবাই বাড়তি যাত্রী বোঝাই করতে উৎসাহ দেন না। কেউই অতিরিক্ত যাত্রী বহন করলে তার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থাসহ জরিমানা করা হয়। এর মধ্যেও ভিড়ের সময় কোন কোন মহিলা বা ব্যক্তি জোর করে খেয়া ট্রলারে উঠে গেলে তাদের কিছুই করার থাকে না।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102