সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৮:১৬ অপরাহ্ন

স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর নির্মম অত্যাচারের অভিযোগ

মোঃ রাশেদুল ইসলাম, পঞ্চগড় ।।
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১১০ বার দেখা হয়েছে
ছবি : প্রতীকী

পঞ্চগড় সদর উপজেলার ৫নং চাকলাহাট ইউনিয়নের মোঃ ছলেমান আলী এর বিরুদ্ধে স্ত্রী কমলা বেগম এর উপর নির্মম অত্যাচারের অভিযোগ উঠেছে । স্থানীয় ভাবে অনেক বার সালিশি বৈঠকের মাধ্যমে তাদের আপোস মীমাংসা করা হলেও তাতে তেমন কোনো প্রতিকার পাননি কমলা বেগম । মোঃ ছলেমান আলী ইউনিয়নের শিংরোড প্রধান পাড়া গ্রামের মৃত মহির উদ্দিন এর ছেলে এবং কমলা বেগম একই এলাকার মৃত আব্দুল জব্বার এর মেয়ে।

কমলা বেগম এর পরিবারের সদস্যরা জানান, ২০১৭ সালে ইসলামী সরাসরিয়ত মোতাবেক কাবিন মূলে মোঃ সলেমান আলী এর সাথে কমলার বিয়ে হয় ।বিয়ের পর দুই বছর সুখে শান্তিতে সংসার করলেও পরবর্তীতে সলেমান আলী আবারও বিয়ে করলে শুরু হয় সংসারে অশান্তি। মোঃ ছলেমান আলী ও স্বতিন ছকিনা বেগম সবসময় কমলা বেগম এর উপর নির্মম অত্যাচার শুরু করে ।

দুই বার হাত ভেঙ্গে গেছে, একবার পা ভেঙ্গে গেছে ।মারপিটের কারনে কমলা বেগমকে অনেক বার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় । বর্তমানে সে পুরোপুরি ভাবে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে ।

তাদের এই অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ আকবর আলী (৭০) বলেন, সলেমান আলী মোছাঃ কমলা বেগমকে সবসময় নির্যাতন করে । একবার প্রচন্ড মারপিটের ঘটনায় কমলার হাত ফেটে যায়, পরবর্তীতে আবারো মারপিটের কারনে হাত ভেঙ্গে যায়, তারপর পা ভেঙ্গে যায় , একবার বুকে আঘাত করলে অনেকদিন কমলা বেগম বুকের ব্যথায় কষ্ট করে । তার পরেও কমলা স্বামীর বাড়িতে ছিল ।ইদানিং প্রচন্ড মারপিটের পর তার চিকিৎসার ব্যবস্থা না করে উল্টো কমলাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় ।এ নিয়ে অনেকবার আপোস মীমাংসা করা হয় ।

স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ শুকুর আলী বলেন, মোঃ সলেমান প্রথমে মোছাঃ ছকিনা বেগমকে বিয়ে করে ।তাদের অনেক দিন সংসার হয়। প্রথম স্ত্রীর দুই ছেলে এক মেয়ে । গত কয়েক বছর আগে তাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হলে স্ত্রী ছকিনা বেগম ছলেমান আলীকে ডিভোর্স দিয়ে চলে যায় । অন্যত্র বিয়ে করে ।পরবর্তীতে ছলেমান আলী কমলাকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে ধর্মীয় নিয়ম অনুযায়ী তাদের বিয়ে হয় । বিয়ের পর দুই বছর সুখে শান্তিতে সংসার করার পর সোলেমান আলী পুনরায় তার প্রথম স্ত্রী সকিনা বেগম কে বিয়ে করে বাড়িতে নিয়ে আসে । আসার পর থেকেই শুরু হয় কমলা বেগম এর উপর নির্মম অত্যাচার । অত্যাচারের এক পর্যায়ে কখনো হাত ভেঙ্গে যায় । কখনো পা ভাঙ্গে বা কখনো শরীরের বিভিন্ন ক্ষয়ক্ষতি হয় । তারপরও কমলা বেগম স্বামীর বাড়িতে থেকে যায় । এই নিয়ে স্থানীয়ভাবে ও ইউনিয়ন পরিষদে অনেকবার বিচার সালিশ হয় ।

তবে কিছুতেই সালেমান আলীর নির্যাতন বন্ধ করা সম্ভব হয়নি । সর্বশেষ কিছুদিন আগে কমলা বেগম কে সোলেমান আলী ও তার প্রথম স্ত্রী সকিনা বেগম মিলে প্রচুর মারধর করে এবং গভীর রাত্রে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। গত কয়েক বছর ধরে প্রায় প্রতিদিনই তাদের ঝগড়া-বিবাদ মারপিট হয় । রাত হলেই কমলা বেগম এর কান্নার চিৎকার আর্তনাদ এলাকার সবাই শুনেছে । তার এই নির্মম অত্যাচারের কারনে বর্তমানে কমলা বেগম মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে । একই কথা বলেছে স্থানীয় আরো অনেকেই ।

তাদের সকলের দাবি সোলেমান আলী মোছাঃ কমলা বেগম এর ওপর যে পরিমাণ নির্মম অত্যাচার করেছে তার একটা কঠিন শাস্তি হওয়া উচিত । বিষয়টি নিয়ে কমলা বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি ঠিকমতো কথা বলতে পারেননি, পরবর্তীতে তার ভাই আলম হোসেন ও আজিম উদ্দিন বলেন, বর্তমানে কমলা বেগম মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে স্বামীর নির্যাতনের কারণে আজকে তার এই দুর্দশা। আমরা সোলেমান আলীর কঠিন শাস্তি দাবি করছি ।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102