মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
“বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাই নাই” বেতন বৈষম্য নিরসনে লালমনিরহাটে মানববন্ধন সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের মরদেহে ডেপুটি স্পিকারের শ্রদ্ধাঞ্জলি লালমনিরহাটে ক্যাবে’র মতবিনিময় সভা লালমনিরহাটে পূজামণ্ডপ পরিদর্শনে নেপালের রাষ্ট্রদূত ঘনশ্যাম ভান্ডারী লালমনিরহাটের প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ আমবাড়ীতে শ্রমিক লীগের আয়োজনে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন নভেম্বরে জাপান সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে লালমনিরহাটে রক্তদান কর্মসূচী ইডেন ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা তদন্তের নির্দেশ শেখ হাসিনা বহির্বিশ্বেও অন্যতম সেরা রাষ্ট্রনায়ক : রাষ্ট্রপতি

শৈত্যপ্রবাহে কাঁপছে নিয়ামতপুর উপজেলাবাসী

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১১৬ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

মোঃ ইমরান ইসলাম, নওগাঁ ।। নওগাঁর নিয়ামতপুরে টানা কয়েকদিন যাবত বয়ে চলেছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ।ঘন কুয়াশা ও কনকন শীতের ঠান্ডা আবহাওয়ায় বিপন্ন হয়ে পড়েছে। উপজেলার জনজীবন। এ শৈত্যপ্রবাহের মধ্যেই শুরু হয়েছে কৃষকের বোরো ধান রোপণের কাজ। ঘন কুয়াশা ও কনকনে শীতের মধ্যে অন্যের জমিতে ধান রোপণের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছে, দিনমজুর ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী মানুষরা।

সইতে হয় কঠিন শীত, কষ্ট করতে হয় সাধারণ গরীব অসহায় মানুষদের।চেয়ে থাকে সমাজের প্রভাবশালী বিত্তবানদের দিকে।উপজেলায় সরকারের পক্ষ থেকে এবং বেসরকারীসহ বিভিন্ন সংস্থা ইতিমধ্যে কম্বল বিতরণ করছে।অন্যদিকে শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে এসেছে।এ অবস্থায় গরম কাপড়ের অভাবে শীতে জুবু-থুবু হয়ে পড়েছে শ্রমজীবী ও ছিন্নমূল মানুষ।তবে ঘন কুয়াশা আর শীতের প্রকোপ বাড়ায় সন্ধ্যা নামতেই শহর হয়ে পড়ে স্থবির।পথচারীরা ঘরমুখী হয়ে পড়ে। সারা দিনের মেঘলা আকাশেই থাকছে সূর্য।

দুপুরের পর একটু সূর্যের দেখা মেলে। এ কারণে বেশিরভাগ সময়ে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে দূরপাল্লার যানবাহন।

শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) সরেজমিনে দেখা যায়, প্রচন্ড শীতে স্বচ্ছলরা বাড়ির বাইরে আসছে কম। তবে খেটে খাওয়া মানুষজনকে জীবিকার সন্ধানে বের হতে হচ্ছে মাঠে।শরীরে একটু গরম কাপড় মুড়িয়ে পায়ে হেটে কাজের সন্ধ্যানে যাচ্ছে মাঠে।শীতের কাঁপুনি নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে দিন মজুরদের।

উপজেলা শহরে চার্জার চালিত ভ্যান চালক নুরুল হক জানান, ঘন কুয়াশার ফলে তাদের গাড়ি চালাতে সমস্যা হয়।অপরদিকে ঠান্ডার কারণে যাত্রী কম।আয় রোজগার কমে যাওয়ায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সমস্যায় আছেন তাদের।

উপজেলার ভাবিচা গ্রামের দিনমজুর রশিদ আলী জানান, কনকনে ঠান্ডার কারণে নিয়মিত মাঠে কাজ করতে যেতে পারছি না। বাড়িতে পরিবারের ৪জন সদস্য রয়েছে।অন্যদিকে আবার সাপ্তাহিক কিস্তি রয়েছে।সব মিলে খুব বিপদের মধ্যে আছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়া মারীয়া পেরেরার জানান, গোটা উপজেলায় শীতার্ত মানুষের সহায়তার জন্য কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।পর্যায়ক্রমে এখনো ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী ও ছিন্নমূল মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হচ্ছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102