শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানির ঈদকে ঘিরে লালমনিরহাট সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু পাচারকারীরা বেপোরয়া নীরবে মানবসেবা করে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান সুজন নীরবে মানবসেবা করে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান সুজন লালমনিরহাটের সিনিয়র সাংবাদিক লাভলু শেখের পিতার মৃত্যুতে দোয়া মাহফিল আমি ডিসিকে পর্যন্ত ছাড়ি নাই…..! নানা আয়োজনে লালমনিরহাটে ভাষা সৈনিক মরহুম মনিরুজ্জামানের জন্মবার্ষিকী পালিত লালমনিরহাটে রেলওয়ে টিএলআরদের স্মারকলিপি ও মানববন্ধন বিশ্ব কবুতর দিবস উপলক্ষ্যে লালমনিরহাটে শোভাযাত্রা সুন্দরগঞ্জ আ.লীগের নতুন কমিটি:আফরুজা বারী সভাপতি, আশরাফুল সম্পাদক সুন্দরগঞ্জে ৬ বছর পর আজ আ’লীগের সম্মেলন, স্বচ্ছ নেতৃত্ব চায় তৃণমূল

লালমনিরহাটে রেলের টিকিট কালোবাজারে মূলহোতা ডিসিও’র ড্রাইভার!

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৫ জুন, ২০২২
  • ১৫৬ বার দেখা হয়েছে

আসাদুল ইসলাম সবুজ ।। নিরাপদ ও আরামদায়ক ভ্রমণের অন্যতম মাধ্যম হলো ট্রেন। তবে অস্বস্তির বিষয় হলো রেলওয়ের টিকিট সংগ্রহে ভোগান্তি। বর্তমানে রেলওয়ের ই-টিকিট সেবা চালু থাকলেও প্রান্তিক মানুষের প্রযুক্তি সম্পর্কে পর্যাপ্ত জ্ঞান না থাকায় এ সেবা গ্রহণ করতে পারছেন না অনেকেই।

এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে আন্তনগর লালমনি এক্সপ্রেস, কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ও রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করে বেশি দামে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে খোদ রেলওয়ের লালমনিরহাট বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তার (ডিসিও) ড্রাইভার সোহেলের বিরুদ্ধে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ডিসিও’র ড্রাইভার হওয়ার সুবাদে সোহেল লালমনিরহাট ডিভিশনের বিভিন্ন স্টেশনে প্রভাব খাটিয়ে অগ্রিম টিকিট সংগ্রহ করেন। পরে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তা দ্বিগুণ দামে বিক্রি করা হয়।

সাম্প্রতিক সময় লালমনিরহাট বুকিং সহকারীর কাছ থেকে লালমনি এক্সপ্রেস টেনের টিকিট, কুড়িগ্রাম বুকিং সহকারীর কাছ থেকে কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেসের টিকিট, রংপুর বুকিং সহকারীর কাছ থেকে রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট এবং দিনাজপুর বুকিং সহকারীর কাছ থেকে টিকিট সংগ্রহ করেন।

শুধু তাই নয়, সোহেল লালমনিরহাট বিভাগীয় রেলওয়ের অধীনস্থ প্রতিটি রেল স্টেশন থেকে ডিসিও’র নাম ভাঙিয়ে টিকিট সংগ্রহ করে তা কালোবাজারে বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লালমনিরহাট রেল বিভাগের একাধিক কর্মচারী বলেন, ‘ডিসিও’র ড্রাইভার হওয়ার কারণে দীর্ঘদিন থেকে টিকিট কালোবাজারির সাথে জড়িত সোহেল। তার একটা সিন্ডিকেট আছে। যারা টিকিট সংগ্রহ করে দ্বিগুন দামে জনগনের কাছে বিক্রি করে আসছে। বিষয়টি তদন্ত করে ওই ড্রাইভারের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তারা।

অভিযুক্ত ডিসিও’র ড্রাইভার সোহেল বলেন, কাউনিয়া ছাড়া অন্য কোনো স্টেশন থেকে আমার নামে কোনও টিকিট আসেনা। তবে তিনি বিষয়টি নিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ না করতে অনুরোধ জানান।

এ বিষয়ে বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার শাহ সুফি নুর মোহাম্মদ বলেন, টিকিট কালোবাজারির বিষয়টি নিয়ে আমি অবগত নই, তবে অভিযুক্ত ব্যক্তির নামে প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102