বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৫:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ইলিয়াস মোল্লা’কেই পুনরায় চেয়ারম্যান হিসেবে চায় লাউকাঠী ইউনিয়নবাসী শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে ভোঁ-দৌড় দিলেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা! লালমনিরহাটে পানির নিচে কৃষকের স্বপ্নের ধান! হাতীবান্ধায় ন্যাশনাল ব্যাংকের করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ভুট্টাক্ষেতে মিলল স্কুলছাত্রীর মরদেহ তিস্তা বাঁচাও ভাঙ্গন ঠেকাও শীর্ষক তিস্তা কনভেনশন কাজীর কান্ড! কাবিননামা নিতে ৩০ হাজার টাকা দাবি মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে দুই পুলিশ কর্মকর্তা আহত! লালমনিরহাটে বিএনপির বাইসাইকেল র‍্যালিতে মির্জা ফখরুল লালমনিরহাটে অস্ত্রসহ ৪ জন জনতার হাতে আটক।। পুলিশে সোপর্দ

লালমনিরহাটে ভুমিহীন পরিবারের জমি বেদখল : পরিবারটির বসবাস অন্যনের জমিতে

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১২৬ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

আসাদুল ইসলাম সবুজ ॥ লালমনিরহাটের এক অসহায় ভুমিহীন পরিবারের ওয়ারিশের সাড়ে ২৮ শতক জমি বেদখলে। ফলে অসহায় ভুমিহীনরা পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করেছেন অন্যনের জমিতে। আর এ ঘটনায় অসহায় ভুমিহীন পরিবারটি মামলা-মোকদ্দমা করেও কোন সুফল না পাওয়ায় বর্তমান সরকারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

জানা গেছে, সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর ইউনিয়নের নিজপাড়া তেলীপাড়া গ্রামের মৃত ফজলে রহমানের পুত্র আমজাদ হোসেন গং এর ওয়ারিশ সুত্রে সাড়ে ২৮ শতক জমি রয়েছে। যা দীঘদিন ধরে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল গায়ের জোড়ে তা বেদখলে নিয়ে ভোগ দখল করছেন।

আমজাদ হোসেন বলেন, ১৯৭০ সালে আমার বাবা ফজলে রহমান পারিবারিক সমস্যার কারণে সাড়ে ২৮ শতক জমি একই এলাকার স্থানীয় কোরবান আলী সরকারের পুত্র তছলিম উদ্দিন সরকারের নিকট ৪শত টাকায় বন্দোক অর্থাৎ তৎকালীন বন্দোকেই (সাব-কবলা) রাখেন।

যার দলিল নং-৮৯৫৯/৭০, যার মেয়াদ ছিল ৯বছর অর্থাৎ ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত। ওই সময় দলিলে শর্তছিল যে, উক্ত ৯ বছরের মধ্যে বন্দোক বা (সাব-কবলার) ৪শত টাকা ফজলে রহমান বা তার কোন ওয়ারিশ তছলিমকে ফিরত দিলে তারা ওই সাড়ে ২৮ শতক জমি ফিরত পাবেন।

এরমাঝে দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সরকারের আমলে তৎকালীন বন্দোক (সাব-কবলা) বাতিল ঘোষণা করেন। সেক্ষেত্রে আমার বাবা ফজলে রহমানেই ওই জমির অংশীদার থাকেন। কিন্তু ১৯৭০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ওই সাড়ে ২৮ শতক জমি বেদখলদ্বারের নিকট থেকে আমরা দখলে নিতে পারি নাই।

তাই জমি উদ্ধারের জন্য বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ সদর আদালত, লালমনিরহাট-এ মামলা দায়ের করি। যার মামলা নং- অন্য-১১৮/২০। যার তফশীল সি.এস.খং.নং-১৪০, এস.এ.খং.নং-১৪৫, বি.আর.এস.খং.নং-১২০ ও ১৬২, দাগ নং-১০১, জমি-.৫৭ একরের মধ্যে সাড়ে ২৮ শতক।

আমজাদ হোসেন আরও বলেন, আমরা অসহায় ভুমিহীন। আমাদের পরিবারের ওয়ারিশের সাড়ে ২৮ শতক জমি দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে বেদখলে। তাই আমরা অসহায় ভুমিহীনরা পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করেছেন অন্যনের জমিতে। আমরা এ ঘটনায় আদালতে মামলা-মোকদ্দমা করেও কোন সুফল না পাওয়ায় বর্তমান সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102