বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন

লালমনিরহাটের খোড়াগাছ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়নি!

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট, ২০২২
  • ৬৯ বার দেখা হয়েছে

আসাদুল ইসলাম সবুজ ॥ সর্বকালের সর্বশেষ্ঠ্র বাঙ্গালি স্বাধীনতার মহানর স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের লক্ষ্যে লালমনিরহাটের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে পালন করা হলেও খোড়াগাছ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভিন্ন চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। ১৫ আগষ্ট দিনটিতে বিদ্যালয় মাঠে শোক দিবস পালনের বদলে ধান কেটে রাখা হচ্ছে।

জানা গেছে, লালমনিরহাট সদর উপজেলার পঞ্চগ্রাম ইউনিয়নের খোড়াগাছ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি অবস্থিত। প্রত্যন্ত পল্লী এলাকায় বিদ্যালয়টি গড়ে উঠায় ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়নি। উক্ত দিবসটির আগের দিন ১৪ আগস্ট ছাত্র/ছাত্রীদের শোকের দিন হিসেবে বিদ্যালয় বন্ধ থাকার ঘোষণা দিয়ে ওই বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক হোসেন আলী নিজেও আসেননি। সকাল ১০টায় শুধুমাত্র একজন অফিস স্টাফ বিদ্যালয়ে এসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে চলে যান। ফলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শণ সহ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়নি। অথচ জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য প্রত্যেকটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। বিদ্যালয় মাঠে শোক দিবস পালনের বদলে ধান কেটে রাখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক হোসেন আলীকে মুঠোফোনে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ে শোক দিবসের অনুষ্ঠান করা হয়েছে সকাল সাড়ে ৭ টায়। সেই অনুষ্ঠানে অন্যান্য সহকারী শিক্ষক ও ছাত্র/ছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন না। তারপর আমি উপজেলা শিক্ষা অফিসের অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করেছি। শোক দিবস অনুষ্ঠানের কোন ছবি তোলা আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি ফোন কেটে দেন।

ওই বিদ্যালয়ের একজন সহকারী শিক্ষক বলেন, আমরা ৫ জন সহকারি শিক্ষক ও একজন অফিস ষ্টাফ সকাল ১০টায় স্কুলে উপস্থিত হয়েছি। কিন্তু প্রধান শিক্ষক নিজেই উপস্থিত হয়নি। শোক দিবস পালনের সরকারী বরাদ্দ ২ হাজার টাকা তুলে নিয়ে তিনি বাড়িতে ঘুমাচ্ছে। ফলে শোক দিবসের কোন অনুষ্ঠান হয়নি।

এ বিষয়ে পঞ্চগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সহকারী শিক্ষক মোঃ মাহফুজার রহমান জানান, শিক্ষক হোসেন আলী, বিএনপি ও জামাতপন্থি। প্রকাশ্য জাতির পিতা, আওয়ামীলীগ, শেখ হাসিনা, মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাপরিপন্থি নানা অকথ্য অপপ্রচার করে থাকেন। শোক দিবসের অনুষ্ঠান না হওয়ায় বিষয়টি জেলা প্রশাসক ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানো হয়েছে। ওই সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেছেন, রাষ্ট্রীয় এই শোক দিবসের অনুষ্ঠান কেন করা হলো না তা তদন্ত করে বিধি মোতাবেক ব্যবসস্থা নিবেন।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য ২ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। দিবস পালন না হলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার গোলাম নবী বলেন, কেন অনুষ্টান করা হয়নি, আমি খোজখবর নিচ্ছি, অনুষ্টান না হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102