শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানির ঈদকে ঘিরে লালমনিরহাট সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু পাচারকারীরা বেপোরয়া নীরবে মানবসেবা করে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান সুজন নীরবে মানবসেবা করে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান সুজন লালমনিরহাটের সিনিয়র সাংবাদিক লাভলু শেখের পিতার মৃত্যুতে দোয়া মাহফিল আমি ডিসিকে পর্যন্ত ছাড়ি নাই…..! নানা আয়োজনে লালমনিরহাটে ভাষা সৈনিক মরহুম মনিরুজ্জামানের জন্মবার্ষিকী পালিত লালমনিরহাটে রেলওয়ে টিএলআরদের স্মারকলিপি ও মানববন্ধন বিশ্ব কবুতর দিবস উপলক্ষ্যে লালমনিরহাটে শোভাযাত্রা সুন্দরগঞ্জ আ.লীগের নতুন কমিটি:আফরুজা বারী সভাপতি, আশরাফুল সম্পাদক সুন্দরগঞ্জে ৬ বছর পর আজ আ’লীগের সম্মেলন, স্বচ্ছ নেতৃত্ব চায় তৃণমূল

মই দিয়ে ৫ কোটি টাকায় সেতুতে উঠছেন স্থানীয়রা!

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৫ মে, ২০২২
  • ৮৫ বার দেখা হয়েছে

আসাদুল ইসলাম সবুজ ।। ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় ৬ মাস আগেই লালমনিরহাট সদর উপজেলার দুড়াকুটি গ্রামে রত্নাই সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। কিন্তু এখনো নির্মাণ করা হয়নি সংযোগ সড়ক। ফলে মই দিয়ে ৫ কোটি টাকায় সেতুতে উঠছেন স্থানীয়রা!

জানা গেছে, উপজেলার মোগলহাট ইউনিয়নের বুকজুড়ে বয়ে চলা রত্নাই নদী। উক্ত নদীর উপরে একটি সেতুর অভাবে দীঘদিন ধরে বাঁশের সাঁকো দিয়ে ৭টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ এপথ দিয়ে চলাচল করছিলেন। ১৫ হাজার মানুষের দুর্ভোগ লাগবে রত্নাই নদীর ওপর ১২০ মিটার দীর্ঘ ও ৮ মিটার চওড়া এ সেতু নির্মাণের জন্য ৫ কোটি ২৪ লাখ ৩২ হাজার টাকা সরকার। রত্নাই সেতুর পশ্চিম দিকে দুড়াকুটি, কর্ণপুর ও ফুলগাছ গ্রাম আর পূর্ব দিকে রয়েছে মেঘারাম, ইটাপোতা, বুমকা ও খারুয়া গ্রাম। সেতুর দুদিকে হাটবাজার ও স্কুল-কলেজ থাকায় ওই ৭ গ্রামের লোকজনকে এ পথে চলাচল করতে হয়।

এছাড়াও আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ী, ভেলাবাড়ী ও দুর্গাপুর ইউনিয়নের মানুষজনও এ পথ দিয়ে যাতায়াত করেন। বর্ষাকালে এসব এলাকার লোকজনকে বিকল্প পথে ৬/৭ কিলোমিটার পথ ঘুরে চলাচল করতে হয়।

এলজিইডি সূত্র জানান, রত্নাই নদীর ওপর ১২০ মিটার দীর্ঘ ও ৮ মিটার চওড়া এ সেতু নির্মাণের ব্যয় ধরা হয় ৫ কোটি ২৪ লাখ ৩২ হাজার টাকা। এক বছর মেয়াদী এ কাজ ২০১৬ সালের ২৫ অক্টোবর শুরুর তারিখ ছিল। কিন্তু নানা কারণে নির্মাণকাজ সঠিক সময়ে শুরু হয়নি। ফলে নির্ধারিত সময়ের চার বছর পর ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে সেতুর নির্মাণকাজ সমাপ্ত হয়।

স্থানীয়রা জানান, সেতুর পূর্ব ও পশ্চিম দিকের সংযোগ সড়ক নির্মাণের জন্য প্রায় ৩০/৩৫ শতক জমি প্রয়োজন। সেতুর দুপাশের জমি ব্যক্তিগত মালিকানার। ওই জমির দাম নিয়ে প্রশাসন ও জমির মালিকদের মধ্যে মতবিরোধ হয়েছে। ফলে সেতু নির্মাণ হলেও সংযোগ সড়ক নির্মাণ হচ্ছে না।

স্থানিয় বাসিন্দা লতিফ মিয়া বলেন, অনেক বছর অপেক্ষায় থেকে আমরা ব্রিজ পাইছি। এখন রাস্তা নেই। অনেকেই মই দিয়ে সেতুতে উঠে পারাপার হচ্ছেন।এলাকাবাসীর সমস্যা নিরসনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আহবানও জানান তিনি।

এ বিষয়ে মোগলহাট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, রত্নাই সেতুর নির্মাণ কাজ নিয়ে শুরু থেকেই বিভিন্ন ধরনের সমস্যা ছিল। এখন সংযোগ সড়কের জমি নিয়ে সমস্যা হয়েছে। তবে সামনে বর্ষাকাল, দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হলে জনগনের চলাচলের দুর্ভোগ কমবে।

লালমনিরহাট এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মনজুর কাদের বলেন, রত্নাই সেতুর দুই দিকে মোট ১১৫ মিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ করতে হবে। এ জন্য ব্যয় হবে প্রায় ৩৪ লাখ টাকা। সংযোগ সড়কের জন্য জমি ক্রয় নিয়ে কিছু সমস্যা আছে। তা সমাধানের জন্য আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102