রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে ভোঁ-দৌড় দিলেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা! লালমনিরহাটে পানির নিচে কৃষকের স্বপ্নের ধান! হাতীবান্ধায় ন্যাশনাল ব্যাংকের করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ভুট্টাক্ষেতে মিলল স্কুলছাত্রীর মরদেহ তিস্তা বাঁচাও ভাঙ্গন ঠেকাও শীর্ষক তিস্তা কনভেনশন কাজীর কান্ড! কাবিননামা নিতে ৩০ হাজার টাকা দাবি মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে দুই পুলিশ কর্মকর্তা আহত! লালমনিরহাটে বিএনপির বাইসাইকেল র‍্যালিতে মির্জা ফখরুল লালমনিরহাটে অস্ত্রসহ ৪ জন জনতার হাতে আটক।। পুলিশে সোপর্দ শ্বশুর বাড়ির পাশে জামাতার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

বিজয়ের মাসে অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অনুমোদন : প্রধানমন্ত্রী

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৬৭ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

বাংলার সংবাদ ডেস্ক ।। ‘জনতার ক্ষমতা জনতার হাতে আমরা ফিরিয়ে দিতে পেরেছি। জনতার গণতান্ত্রিক অধিকারটা যখন জনতার হাতে আমরা ফিরিয়ে দিয়েছি। ক্ষমতাটা এখন জনতার হাতে যার ফলে আমাদের উন্নয়নের গতিধারাটাও যথেষ্ট সচল হয়েছে এবং মানুষ তার সুফল পাচ্ছে ’ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

মঙ্গলবার সকালে (২৯ ডিসেম্বর) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে শেরে বাংলা নগর এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিজয়ের মাসের মধ্যেই আমরা অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনাটা অনুমোদন করে দেবো। যাতে ২০২১ সাল থেকেই এটার বাস্তবায়নের কাজ করতে পারি। কারণ আমাদের সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনাও শেষ হয়ে যাবে। কাজেই তারপরে সাথে সাথেই অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রণয়ন করে এবং তা বাস্তবায়নের কাজ শুরু করতে পারি।’

জাতির পিতার ক্ষুধামুক্ত-দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তোলা স্বপ্ন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশ একটা মর্যাদাও পেয়েছে। একসময় বাংলাদেশ বললে সবাই এমনভাবে ভাব দেখাত যে এই বাংলাদেশ শুধু মানুষের কাছে হাত পেতে চলে। তখন আমার নিজের খুব আত্মসম্মানে বাঁধত এবং কষ্ট লাগত। সারাটা জীবন জাতির পিতা সংগ্রাম করেছেন, কষ্ট করেছেন, লাখো শহীদ রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা এনেছে সেই স্বাধীন দেশকে কেউ এরকম অবহেলার চোখে দেখলে এটা আমাদের জন্য লজ্জাজনক।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘যেহেতু গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা ছিল না। হত্যা ক্যু ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বাংলাদেশে শুরু হয়েছিল। মিলিটারি ডিটেকটররা ক্ষমতায় এসেছে একের পর এক বা ক্ষমতাটা ওই ক্যান্টনমেন্টের ভিতরেই বন্দি ছিল। যেকারণে উন্নয়নের গতিধারাটা অব্যাহত থাকে না।’

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102