মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০১:০২ অপরাহ্ন

বাঙালির নানা মুক্তির আন্দোলনের সাথে জড়িয় ‘কল-রেডি’

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৩ মার্চ, ২০২১
  • ৬৫ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

বাংলার সংবাদ ডেস্ক ।। বাঙালির নানা মুক্তির আন্দোলনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে ‘কল-রেডি’। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান এবং ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনের সভা-সমাবেশেও কল-রেডির মাইকে বক্তব্য দিয়েছেন নেতারা।

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ কল-রেডির মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু ঘোষণা দিয়েছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ এ ছাড়া কল-রেডি মাইকে বক্তব্য দিয়েছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকসহ অনেকে।

৭ মার্চে বঙ্গবন্ধু দিতে পারেন স্বাধীনতার ডাক। এই ভয়ে পাকিস্তানি সামরিক সরকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান) সৈন্য মোতায়েন করে। যেকোন সময় হতে পারে তাদের আক্রমণ। এমন উৎকণ্ঠিত পরিস্থিতিতে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণে শুধু টাকার জন্য সাড়া দেয়নি কলরেডী। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে পাকিস্তানি স্বৈরশাসকের হুমকির মুখে রাতের অন্ধকারে প্রায় ১০ লক্ষ মানুষের সেই ঐতিহাসিক সমাবেশে মাইকের আয়োজন করে কলরেডী বলে জানান কলরেডীর প্রতিষ্ঠাতা হরিপদ ঘোষের ছেলে সাগর ঘোষ।

কলরেডীর বর্তমান পরিচালক সাগর ঘোষ বলেন, ৭ মার্চের ৩ দিন আগে বঙ্গবন্ধু তার ধানমন্ডির বাসায় আমার বাবা হরিপদ ঘোষ ও জ্যাঠা দয়াল ঘোষকে ডেকে সমাবেশে মাইকের ব্যবস্থা করতে বলেন। কিন্তু স্বৈরশাসকের রক্তচক্ষুতে জীবন বিপন্নের ভয় ও এতো বড় সমাবেশে মাইক ভাড়ার খরচ বেশি হওয়ার কারণে অনেকে তাদের মানা করেন। কিন্তু স্বাধীনতার ডাকে রাতের অন্ধকারে লুকিয়ে মাঠে মাইক লাগান বাবারা। মাইক লাগিয়ে কাপড় দিয়ে ঢেকে দেন তারা। বঙ্গবন্ধুর ভাষণে যান্ত্রিক ত্রুটি যেন না হয় সেজন্য অতিরিক্ত তিনটি মাইক্রোফোন, কিছু হ্যান্ড মাইক ও ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগসহ নিজেরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় তিনি আক্ষেপ করে আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু ঐতিহাসিক ভাষণের সাক্ষী হতে পরে কলরেডী গর্ববোধ করে। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের সেই স্টান্ড, মাইক্রোফোন সবই আছে। কিন্তু কলরেডীর কোন স্বীকৃতি মেলেনি। সরকার এগুলো যথাযথ মর্যাদায় সংরক্ষণ করলে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ও কলরেডীর ইতিহাস সংরক্ষিত হবে।

জানা যায়, ১৯৪৮ সালের দিকে দয়াল ঘোষ ও হরিপদ ঘোষ নামে দুই ভাই পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজারে আরজু লাইট হাউজ প্রতিষ্ঠা করেন। পরে নাম দেয় কলরেডী।অর্থাৎ কল করলেই রেডী। এরপর একে একে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান, ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচন এবং ১৯৭১ এ ইতিহাসিক ৭ই মার্চের সমাবেশে মাইক সার্ভিস হিসেবে ব্যবহার করা হয় কলরেডী। ৭ মার্চে কলরেডীর যে মাইক্রোফোনে বঙ্গবন্ধু তার ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়েছিলেন সেই মাইক্রোফোন আর কাউকে ব্যবহার করতে দেয়া হয়নি। দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দেশে ফিরে এসেও কলরেডীর মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে ভাষণ দিয়েছিলেন।

এছাড়া কলরেডীর মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে ভাষণ দিয়েছেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, এ কে ফজলুল হক, ইন্দিরা গান্ধী, প্রণব মুখার্জি, অটল বিহারি বাজপেয়ি, ইয়াসির আরাফাত, নেলসন ম্যান্ডেলা, বিল ক্লিনটনসহ দেশ ও বিদেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ আরও অনেকে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102