শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:০৭ অপরাহ্ন

ফেরেশতারা যে পাঁচ ব্যক্তির জন্য দোয়া করেন

বাংলার সংবাদ ডেস্ক ।।
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০২২
  • ৭১ বার দেখা হয়েছে
ছবি : সংগৃহীত

পরকালের কঠিন শাস্তি থেকে মুক্তি, জান্নাত লাভের জন্য মানুষ আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া করে থাকেন। প্রত্যাশা থাকে মহান রব যেন সব দোয়া কবুল করেন। তবে দোয়া আসলে কতটা কবুল হচ্ছে এই বিষয়ে সংশয় থেকেই যায়। তবে আল্লাহ তায়ালার পবিত্র ও নিষ্পাপ মাখলুক ফেরেশতারা কারো জন্য দোয়া করলে সে দোয়া কবুল হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

ফেরেশতারা সব সময় আল্লাহ তায়ালার হুকুম পালন ও তার ইবাদত, বন্দেগিতে লিপ্ত থাকেন। সৃষ্টিগতভাবে ফেরেশতাদের আল্লাহর অবাধ্যতার শক্তি দেওয়া হয়নি। সর্বদা তারা আল্লাহর হুকুম পালন করেন। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেন, ‘তারা (ফেরেশতারা) তা অমান্য করে না, যা আল্লাহ তাদের আদেশ করেন। তারা যা করতে আদিষ্ট হয়, তাই করে।’ (সুরা : তাহরিম, আয়াত : ৬)

উম্মতের দরদী নবীজি (স.) তার প্রিয় উম্মতকে এমন কিছু আমল শিখিয়েছেন, যে আমলে মেলে ফেরেশতার দোয়া। আমলগুলো নিচে বর্ণনা করা হলো—

প্রথম কাতারে নামাজ পড়া ব্যক্তি

‘একদিন রাসুলুল্লাহ (সা.) (তার সামনে উপস্থিত সাহাবাদের লক্ষ করে) বললেন, যারা প্রথম কাতারে নামাজ পড়ে, আল্লাহ তায়ালা তাদের প্রতি রহমত বর্ষণ করেন, ফেরেশতারাও তাদের জন্য রহমতের দোয়া করেন। (তার এ কথা শুনে) সাহাবিরা বললেন, যারা দ্বিতীয় কাতারে নামাজ পড়ে তাদের জন্যও (দোয়া করুন)।

রাসুলুল্লাহ (সা.) আবার বললেন, যারা প্রথম কাতারে নামাজ পড়ে আল্লাহ তায়ালা তাদের প্রতি রহমত বর্ষণ করেন, ফেরেশতারাও তাদের জন্য রহমতের দোয়া করেন। তখন সাহাবিরা বললেন, যারা দ্বিতীয় কাতারে নামাজ পড়ে তাদের জন্যও (দোয়া করুন)।

রাসুলুল্লাহ (সা.) আবার বললেন, যারা প্রথম কাতারে নামাজ পড়ে আল্লাহ তায়ালা তাদের প্রতি রহমত বর্ষণ করেন, ফেরেশতারাও তাদের জন্য রহমতের দোয়া করেন। তখন সাহাবিরা বললেন, যারা দ্বিতীয় কাতারে নামাজ পড়ে তাদের জন্যও (দোয়া করুন)। (তাদের কথা শুনে চতুর্থবার) রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, এবং যারা দ্বিতীয় কাতারে নামাজ পড়ে তাদের প্রতিও (রহমত বর্ষণ করেন)’। (মুসনাদে আহমদ: ২২২৬৩; হাদিসটি সহিহ লিগাইরিহি)

মুসলিম ভাইয়ের জন্য যিনি দোয়া করেন

সহিহ মুসলিমে হজরত আবু দারদা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন—

مَا مِنْ عَبْدٍ مُسْلمٍ يَدْعُو لأَخِيهِ بِظَهْرِ الغَيْبِ إِلاَّ قَالَ المَلَكُ: وَلَكَ بِمِثْل

‘যখন কোনো মুসলিম তার ভাইয়ের জন্য তার পশ্চাতে দোয়া করে, তখন তার (মাথার কাছে নিযুক্ত) একজন ফেরেশতা তাকে লক্ষ্য করে বলে, তোমার জন্যও এমনই হোক’। (সহিহ মুসলিম: ২৭৩২)

অন্য বর্ণনায় এসেছে, কোনো মুসলিম তার ভাইয়ের অবর্তমানে তার জন্য নেক দোয়া করলে তা কবুল হয়। তার মাথার কাছে একজন ফেরেশতা নিয়োজিত থাকে, যখনই সে তার ভাইয়ের জন্য দোয়া করে, তখনই ঐ ফেরেশতা বলেন, আমিন! তোমার জন্যও এমনই হোক। (সহিহ মুসলিম: ২৭৩২)

অজুসহ ঘুমানো
হজরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রাতে পবিত্র অবস্থায় (অজু সহকারে) ঘুমায়, একজন ফেরেশতা তার গায়ের সঙ্গে লেগে থাকা কাপড়ের ভেতরে অবস্থান করে। রাতে সে যখনই জাগ্রত হয়, ঐ ফেরেশতা তার জন্য দোয়া করে বলে, হে আল্লাহ, আপনি আপনার এ বান্দাকে ক্ষমা করে দিন। সে পবিত্র অবস্থায় রাত কাটাচ্ছে’। (সহিহ ইবনে হিব্বান: ১০১৫)

প্রতিদিন অল্পকিছু হলেও সদকা করা
হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, প্রতিদিন সকালে দুইজন ফেরেশতা (আসমান থেকে) অবতরণ করেন। তাদের একজন বলেন, হে আল্লাহ, যে দান করে তাকে তার দানের উত্তম প্রতিদান দিন আর অপরজন বলেন, হে আল্লাহ, যে দান করে না, তাকে ধ্বংস করে দিন’। (সহিহ বুখারি: ১৪৪২; মুসলিম ১০১০)

কল্যাণের পথে দানকারী
রাসূল ( সা.) বলেছেন, প্রতিদিন সকালে দুইজন ফেরেশতা অবতরণ করেন, একজন বলেন, হে আল্লাহ! দানকারীর সম্পদ বাড়িয়ে দাও। আর অপরজন বলেন, হে আল্লাহ! যে দান করে না তার সম্পদকে বিনাশ করে দাও। (বুখারী ১৪৪২)

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102