মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লালমনিরহাটের খোড়াগাছ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়নি! একেই বলে লালমনিরহাটের দেউতির হাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের প্রভুভক্তি! উমাপতি হরনারায়ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মাঞ্জুমার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত শুরু নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে শিবরাম স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালিত লালমনিরহাটে দুর্বৃত্তদের হামলায় ৫ সাংবাদিক আহত, একজন আসামি গ্রেফতার লালমনিরহাটে অটোরিক্সা চালক অপহরণ, মুক্তিপণ দাবী (ভিডিও সহ) মহাত্মাগান্ধী গোল্ডেন এ্যাওয়াড পেলেন লালমনিরহাটের তিস্তা কে. আর. খাদেম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংস্কার কাজ পানির স্রোতে হারিয়ে যাচ্ছে! লালমনিরহাট রেলওয়ে চুক্তিভিত্তিক টিএলআর, নিয়োগে লক্ষ লক্ষ হাতিয়ে নিচ্ছেন ফিরোজ হারিয়েছে…

তীব্র শীতে চায়ের কাপেই স্বস্তি খুঁজে লালমনিরহাটের মানুষ

স্টাফ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৫৮ বার দেখা হয়েছে

খাজা রাশেদ ।। দেশের উত্তরের জেলা লালমনিরহাটে শীতের দাপট বাড়ছেই। প্রায় প্রতিদিন লাফিয়ে বাড়ছে শীতের তীব্রতা। শীতের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে জেলার বিভিন্ন উপজেলায়। বিশেষ করে সকাল এবং সন্ধ্যার পরই বইছে হিমেল হাওয়া। রাত বাড়ার সাথে, সাথে বাড়ছে শীতের তীব্রতা।

উত্তরে হিমালয় কাছে হওয়ায় দেশের অন্য জেলার চেয়ে প্রতি বছরই লালমনিরহাটে শীতের প্রকোপ বেশি থাকে। গত বছরের চেয়ে এবার শীত এসেছে আগেভাগেই। এবার শীতের এমন দাপটে বিপাকে জেলার খেটে-খাওয়া মানুষেরা।

তীব্র শীতে লালমনিরহাটের ৫টি উপজেলার জনজীবন প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছে। দিন দিন তাপমাত্রা হ্রাস পাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। দিনের তাপমাত্রা কিছুটা সহনীয় হলেও হ্রাস পাচ্ছে রাতের তাপমাত্রা। শীতল বাতাস বাড়িয়ে দিচ্ছে মানুষের ভোগান্তি।

জেলার বিভিন্ন উপজেলায় দেখা গেছে শীতে মধ্যে বৃদ্ধা মানুষ চায়ের কাপে উষ্ণতার খোঁজে ভিড় করছে শহরের ও গ্রামের চায়ের দোকান গুলোতে। শীতে এককাপ চায়ের একটু উষ্ণতা নিতে পাড়ার চায়ের দোকানে এখন শীতের সকালে ও সন্ধ্যায় উপচে পড়া ভিড়।

লালমনিরহাটের সদর উপজেলাধীন কুলাঘাট,মোগলহাট ইউনিয়নের আলোকদীঘি, দক্ষিণ শিবেরকুঠি, চরকুলাঘাট, বনগ্রাম, মেঘারাম ও ভাটিবাড়ীসহ উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের চায়ের দোকানী ও সাধারন মানুষের সাথে কথা হলে তারা বলেন, গতবারের তুলনায় এবার শীত খুবই বেশী। তাই এ অঞ্চলের খেটে-খাওয়া মানুষেরা সকাল-সন্ধ্যায় চায়ের কাপে মুখ না দিয়ে বাড়ি থেকে কাজে বের হয় না। বিশেষ করে কাজে যাওয়ার আগে সকলে ও কাজ থেকে ফেরার পরে সন্ধ্যায় জনসমাগম বেশী দেখতে পাওয়া যায়। শীতের কাঁপুনী নিয়ে জড়োসড়ো হাতে এককাপ চায়ে চুমুক দিয়ে স্বস্তি মেলে এঅঞ্চলের মানুষের।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102