শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে বসতভিটা ও চাষাবাদের ৩৩ শতক জমি রক্ষায় নিঃস্ব ফৈমুদ্দিন শুধুই কাঁদছেন! লালমনিরহাটের গোকুন্ডায় যৌতুকের দাবীতে গৃহবধুকে অমানসিক নির্যাতনে অভিযোগ মই দিয়ে ৫ কোটি টাকায় সেতুতে উঠছেন স্থানীয়রা! ইলিয়াস মোল্লা’কেই পুনরায় চেয়ারম্যান হিসেবে চায় লাউকাঠী ইউনিয়নবাসী শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে ভোঁ-দৌড় দিলেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা! লালমনিরহাটে পানির নিচে কৃষকের স্বপ্নের ধান! হাতীবান্ধায় ন্যাশনাল ব্যাংকের করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ভুট্টাক্ষেতে মিলল স্কুলছাত্রীর মরদেহ তিস্তা বাঁচাও ভাঙ্গন ঠেকাও শীর্ষক তিস্তা কনভেনশন কাজীর কান্ড! কাবিননামা নিতে ৩০ হাজার টাকা দাবি

কোরবানির ঈদকে ঘিরে লালমনিরহাটে দেশী গরুর সাথে মিশিয়ে ভারতীয় গরু বিক্রি হচ্ছে

নতুন বাংলার সংবাদ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ জুলাই, ২০২১
  • ৫০ বার দেখা হয়েছে
ছবি: সংগৃহীত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দেশের উত্তরে অবস্থিত সীমান্তবর্তী একটি জেলা নাম লালমনিরহাট। ২৫.৪৮ ডিগ্রি থেকে ২৬.২৭ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮.৩৮ ডিগ্রি থেকে ৮৯.৩৬ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে জেলাটির অবস্থান। এ জেলার উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার ও জলপাইগুড়ি জেলা, দক্ষিণে রংপুর জেলা, পূর্বে কুড়িগ্রাম ও ভারতের কোচবিহার জেলা এবং পশ্চিমে রংপুর ও নীলফামারী জেলা।

উত্তরে ধরলা নদী ও দক্ষিনে তিস্তা নদী এবং ৭৪ কিঃমিঃ কাঁটাতারের বেড়াবিহীন লালমনিরহাট সীমান্তগুলো উম্মুক্ত। ফলে সীমান্তের এই দূর্বলাতার সুযোগ নিয়ে কোরবানির ঈদকে ঘিরে ভারতীয় গরু পাচারকারীরা বেপোরয়া হয়ে উঠেছে। এখনো প্রতিদিন শত শত ভারতীয় গরু হাট-বাজাররে দেশী গরুর সাথে মিশিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে।

জানা গেছে, জেলার ২৮৫ কিঃ মিঃ ভারতীয় সীমান্ত রয়েছে। এই সীমান্তের প্রায় ৭৪ কিঃমিঃ কাঁটাতারের বেড়াবিহীন অবস্থায় রয়েছে। কাঁটাতারের বেড়াবিহীন সীমান্তগুলো হল, বুড়িতিস্তা, ধরলা ও তিস্তা নদী দ্বারা বেষ্টিত। কোথাও কোথাও রয়েছে দূর্গম চরাঞ্চল।

সীমান্তের এই দূর্বলাতার সুযোগ নিয়ে কোরবানির ঈদে গরুর চাহিদার উপর নির্ভর করে গরু পাচারকারিরা বেপোরয়া হয়ে উঠেছে। সীমান্তের দহগ্রাম, দৈইখাওয়া, কালীগঞ্জ, চাপারহাট, গোড়ল, কুটিয়ামঙ্গল, দূর্গাপুর ও মোগলহাট সীমান্ত দিয়ে দেদারছে ভারতীয় গরু আসছে। এসব ভারতীয় গরুর বেশির ভাগ ধরলা নদী দিয়ে নৌপথে কাঁঠালবাড়ি ও বড়বাড়ি হাটে গিয়ে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়াও সপ্তাহের শনিবার-বুধবার জেলার কালীগঞ্জের শিয়াল খোওয়ায়হাট। শুক্রবার-সোমবার চাপারহাট, শনিবার-মঙ্গলবার দূরাকুটিহাট ও বুধবার বড়বাড়িরহাটে শতশত ভারতীয় গরু চোরাইপথে এনে দেশি গরুর সাথে মিশিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে। এই সব গরু প্রকাশ্য বিক্রি হচ্ছে দেশে বিভিন্ন জেলা ঢাকা, চট্রগ্রাম, কুমিল্লা, বগুড়া, রংপুরসহ নানা স্থানে ট্রাকভর্তি করে পাচার হয়ে চলে যায়।

একটি সুত্র জানান, লালমনিরহাট ২৮৫ কিঃমিঃ সীমান্তে লালমনিরহাট ১৫ বিজিবি, রংপুর ৫১ বিজিবি ও রংপুর ৬১ বিজিবি দায়িত্ব পালন করে আসছে। সীমান্তে কঠোরভাবে দায়িত্ব পালনের সুবিধার্থে তিনটি পৃথক ব্যাটালিয়ন দায়িত্ব পালন করছে। আইন শৃংখলা বাহিনী তল্লাশীতে গিয়ে হাটের স্লীপ দেখে ফিরে আসে। প্রকৃত অর্থে এটা অযুহাত মাত্র। এক জোড়া ভারতীয় গরু পাচার হয়ে আসেলে সীমান্ত রক্ষীবাহিনী, অন্যান্য বাহিনী, রাজনৈতিক কর্তা, মাস্তান তো রেসিও অনুয়ায়ী অর্থ পেয়ে থাকে।

এই গরুর অবৈধ অর্থেও কারণে সীমান্ত সংলগ্ন হাটের ইজারাদার ও চেয়ারম্যান, মেম্বারগণ কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। অনেকে গরুর ব্যবসার পাশাপশি হুন্ডির ব্যবসা করছে। কিন্তু মাফিয়া এই চক্রের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পায়না। বহস্যজনক কারণে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যগণ কৌশলে বিষয়টি এড়িয়ে যান। এভাবে গরু আসলে দেশী খামারে লালন-পালন করা গরুর খামারিরা লোকসানে পড়তে হবে। ফলে সরকারকে কঠোর হস্তে ভারতীয় গরু পাচার রোধে পদক্ষেপ নিতে বলেছে খামারিগণ।

আপনার মন্তব্য লিখুন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2017 notun-bdsangbad
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102